আরও কঠোর হচ্ছে KYC

নয়া KYC প্রক্রিয়ায় গুরুত্ব বাড়তে চলেছে PAN-এর। একটি PAN-এর সঙ্গে মোবাইল নম্বর যুক্ত। যদিও বিশদ নিয়ম পরে বিভিন্ন ব্যাঙ্কের তরফে প্রকাশ করা হবে।

Paytm-এর বিরুদ্ধে কেন্দ্র ব্যবস্থা গ্রহণের পরে KYC-র নিরাপত্তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ বেড়েছে। শুধু Paytm নয়, বাকি অনেক ফিনটেক কোম্পানিগুলিও KYC নিয়ম মেনে চলার ক্ষেত্রে গড়িমশি করেছে। যদিও এই সমস্ত অনিয়ম বন্ধে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। যার প্রতিফলনও দেখা যাচ্ছে। এবার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে KYC প্রক্রিয়া আরও শক্তপোক্ত করতে চাইছে সরকার। KYC প্রক্রিয়ায় নতুন স্তর যুক্ত করার ভাবনা কেন্দ্রের। এখন প্রশ্ন হল নতুন ব্যবস্থা কেমন হতে চলেছে এবং এর ফলে লাভই বা কী হতে পারে? এই সমস্ত প্রশ্নের আমরা উত্তর জানার চেষ্টা করব আজকের ভিডিওতে।

খুব শীঘ্রই দেশের প্রতিটি ব্যাঙ্ক তাদের KYC প্রক্রিয়ায় অতিরিক্ত ভেকিফিকেশন স্তর যুক্ত করতে চলেছে। এর উদ্দেশ্য হল প্রতিটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ও অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের সম্পর্কে সঠিক ও সুনির্দিষ্ট তথ্য সংগ্রহ করা। ফলে বর্তমান ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলিকেও আপডেট করতে হবে।

KYC মানদণ্ড তৈরির জন্য সরকার ইতিমধ্যেই একটি কমিটি গঠন করেছে। বিষয়টি নিয়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক এবং সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসবে ব্যাঙ্কগুলি। দেখা গিয়েছে যে, একই ফোন নম্বর ব্যবহার করে একাধিক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। এই সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নিয়ে তদন্ত করা হতে পারে। আগে মোবাইলের SIM কার্ডের ক্ষেত্রে এই ধরনের তদন্ত করা হত। একই পরিচয়পত্র ব্যবহার করে একাধিক SIM তোলা হলে তদন্ত করে দেখা হত।

এই ধরণের অনিয়ম বন্ধে মাল্টি-লেভেল secondary identification framework তৈরি করা হচ্ছে। এর ফলে একই নাম ও মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে একাধিক অ্য়াকাউন্ট খোলা হলে তা শনাক্ত করা যাবে।

এছাড়া নয়া KYC প্রক্রিয়ায় গুরুত্ব বাড়তে চলেছে PAN-এর। একটি PAN-এর সঙ্গে মোবাইল নম্বর যুক্ত। যদিও বিশদ নিয়ম পরে বিভিন্ন ব্যাঙ্কের তরফে প্রকাশ করা হবে।

জয়েন্ট অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে প্যান, আধার এবং ইউনিক মোবাইল নাম্বার বা UMN-এর মতো চিহ্নিতকরণের একাধিক পন্থার উপরে জোর দেওয়া হচ্ছে। কারণ কেউ অন্য অন্য KYC ডকুমেন্ট দিয়ে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুললেও তা চিহ্নিত করা সম্ভব হবে।

বর্তমানে পাসপোর্ট, আধার, ভোটার কার্ড, NREGA কার্ড, PAN কার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা যায়।

অভিন্ন KYC বিধি তৈরির বিষয়ে গত মাসেই Finance Stability and Development Council বা FSDC-তে আলোচনা হয়েছে। এর ফলে কারোর KYC রেকর্ড প্রতিটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করতে পারবে। এর ফলে KYC প্রক্রিয়া ও তার ডিজিটালাইজেশন সরল হবে।

ফিনটেক সংস্থাগুলির জন্য KYC নিয়মে ছাড় দেওয়া নিয়ে বিভিন্ন ব্যাঙ্ক এর আগে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল। বিষয়টি RBI-এর নজরেও এনেছিল তারা। যার ফলশ্রুতিতে সরকার ও দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক এই ধরণের পদক্ষেপ নিচ্ছে।

KYC ব্যবস্থা আঁটোসাঁট হলে ব্যাঙ্কগুলির সমস্যা যেমন লাঘব হবে তেমনই লাভবান হবেন আপনিও। কারণ এর ফলে আপনার KYC ডকুমেন্টের অপব্যবহারের আশঙ্কা কমবে।

Paytm-এর বিরুদ্ধে RBI-এর তদন্তে এমন অনেক ঘটনা সামনে এসেছে যাতে চক্ষু চড়কগাছ তথ্যভিজ্ঞ মহলের। এমন অনেকগুলি কেস পাওয়া গিয়েছে যেখানে একশো’টির বেশি অ্যাকাউন্ট একটি মাত্র PAN-এর সঙ্গে লিঙ্ক করা হয়েছে। আবার কিছু ক্ষেত্রে হাজারের বেশি গ্রাহক একটি প্যান নম্বরের সাথে Paytm অ্যাকাউন্ট লিঙ্ক করেছেন। এই সমস্ত ঘটনায় এখন তদন্ত চলছে।

এমন পরিস্থিতিতে, ব্যাঙ্ক এবং অন্যান্য ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্টে KYC-র ক্ষেত্রে অনিয়ম করবেন না।

KYC-তে কোনও ভুল তথ্য বা নথি দিয়ে থাকলে অবিলম্বে তা সংশোধন করে নিন। তদন্তে ধরা পড়লে রেহাই পাওয়া কঠিন হতে পারে।

Published: March 28, 2024, 14:47 IST

পার্সোনাল ফাইনান্স বিষয়ের সর্বশেষ আপডেটের জন্য ডাউনলোড করুন Money9 App