বোনাস: বিনিয়োগ করে বাড়িয়ে নিন

বাড়ি কেনা, অবসর গ্রহণের পরিকল্পনা বা বড় অঙ্কের তহবিল তৈরির মতো দীর্ঘ মেয়াদি আর্থিক লক্ষ্য পূরণেও বোনাসের টাকা ব্যবহার করুন।

কথায় বলে বিন্দু বিন্দুতে সিন্ধু। লগ্নির ক্ষেত্রেও তা সমানভাবে প্রযোজ্য। প্রতিটা পয়সা এখানে খুব গুরুত্বপূর্ণ। এক টাকা এক টাকা জমাতে পারলে একসময় তা বড় তহবিলের রূপ নেয়। আর্থিক বছর শেষ হওয়ার মুখে। চাকরিজীবীরা বোনাসের অপেক্ষায় হাপিত্যেশ করে বসে আছেন। সাধারণত এপ্রিল-মে মাস থেকে বিভিন্ন সংস্থা তাদের কর্মীদের বার্ষিক বোনাস দিতে শুরু করে। তখন কিছু মানুষ হয়তো বুঝতে পারবেন না যে বোনাসের টাকা দিয়ে তাঁরা কী করবেন, আবার অনেকে কেনাকাটা করে সব টাকা খরচ করে ফেলবেন। কিন্তু এই বোনাসের টাকার সদ্ব্যাবহার কীভাবে করা যায়, তা নিয়ে কি কখনও ভেবে দেখেছেন? আসুন জেনে নেওয়া যাক।

বিভিন্ন কোম্পানি তাদের কর্মচারীদের উপহার হিসেবে মাসিক বেতনের সঙ্গে বোনাস দিয়ে থাকে। বোনাসের টাকা এমনভাবে ব্যবহার করা উচিত যা থেকে রিটার্ন পাওয়া যায়। তবে লগ্নি করার আগে কয়েকটি বিষয় জেনে-বুঝে নেওয়া খুব জরুরি। যেমন আর্থিক লক্ষ্য, মেয়াদ, ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা ইত্যাদি।

আর্থিক লক্ষ্য স্থির করতে পারলে বিনিয়োগ-সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত নিতে সুবিধা হয়। যেমন হতে পারে সন্তানের পড়াশোনা, অবসর জীবন বা বাড়ি কেনার ডাউন পেমেন্টের জন্য অর্থ সঞ্চয়ের মতো দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য। আবার বেড়াতে যাওয়া, স্কিল ডেভলপমেন্ট বা গাড়ি বা বাইক কেনার মতো স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্যও হতে পারে।

বাজারের সঙ্গে জড়িত এমন বিনিয়োগে নির্দিষ্ট রিটার্নের কোনও গ্যারান্টি নেই। বাজারের অবস্থার ওঠানামা হতে পারে। অতএব, বিনিয়োগ করার আগে আপনার আর্থিক পরিস্থিতি এবং ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা বিবেচনা করা খুব জরুরি কাজ।

বোনাসে পাওয়া টাকার সবটা একটি মাত্র সম্পদে বিনিয়োগ করার পরিবর্তে, শেয়ার, বন্ড, রিয়েল এস্টেট এবং সোনার মতো বিভিন্ন সম্পদ শ্রেণিতে ভাগ করা উচিত। যেমন আপনি শেয়ারে 50%, বন্ডে 30% এবং রিয়েল এস্টেট এবং সোনায় 10% করে অর্থ বিনিয়োগ করতে পারেন। একে বলা হয় পোর্টফোলিও ডাইভার্সিফিকেশন। এর ফলে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঝুঁকির মাত্রা কমে।

স্টক, মিউচুয়াল ফান্ড, এক্সচেঞ্জ-ট্রেডেড ফান্ড বা ETF, রিয়েল এস্টেট এবং সোনার মতো বিনিয়োগের নানা বিকল্প বাজারে আছে। প্রতিটি বিনিয়োগের পথ নিয়ে পড়াশোনা করা করুন এবং সেগুলির অতীত পারফরম্যান্স, ফি, ​​ঝুঁকি এবং রিটার্ন তুলনা করুন।

এখন প্রশ্ন হল, কীভাবে বোনাসের টাকার সঠিক ব্যবহার কা যেতে পারে? এখানে কিছু পরামর্শ রইল। আপনার কোনও ঋণ থাকলে বোনাসের টাকার তা পরিশোধ করে দিতে পারেন। এর ফলে ঋণের সুদ গুণতে হবে না। তাছাড়া ক্রেডিট স্কোরও বাড়বে। বিশেষত, ক্রেডিট কার্ড কোম্পানিগুলি interest-free period-এর পরে গ্রাহকের বকেয়া টাকার উপরে চড়া সুদ নেয়। তাই বিনিয়োগ থেকে রিটার্নের সঙ্গে ক্রেডিট কার্ডের সুদ মেলে না। অতএব, চড়া সুদ নেওয়া ঋণ পরিশোধ করতে বোনাসের টাকা ব্যবহার করা বুদ্ধিমানের কাজ।

মেডিক্যাল এমার্জেন্সি বা চাকরি হারানোর মতো খারাপ পরিস্থিতি মোকাবিলায় এমার্জেন্সি ফান্ড থাকা খুব জরুরি। এমনকী বিনিয়োগের আগে প্রত্যেকের এই বিষয়টি ভাবা উচিত। আপনার এমার্জেন্সি ফান্ড আছি কি? না থাকলে বোনাসের কিছু টাকা বরাদ্দ করে একটি ফান্ড তৈরি করতে পারেন। মনে রাখবেন, কমপক্ষে ছ’মাসের প্রয়োজনীয় সমস্ত খরচ চালোনার মতো অর্থ একটি এমার্জেন্সি ফান্ডে থাকা উচিত।

বাড়ি কেনা, অবসর গ্রহণের পরিকল্পনা বা বড় অঙ্কের তহবিল তৈরির মতো দীর্ঘ মেয়াদি আর্থিক লক্ষ্য পূরণেও বোনাসের টাকা ব্যবহার করুন। দীর্ঘ মেয়াদি এই সমস্ত লক্ষ্য পূরণে মিউচুয়াল ফান্ডে বোনাসের টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন।

দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের মানসিকতা এবং ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা থাকলে শেয়ার বা ইক্যুইটি মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে পারেন। শেয়ারে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঝুঁকির মাত্রা খুব বেশি। একইসঙ্গে এখানে বেশি রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অনেক কোম্পানি আছে যেগুলির ফান্ডামেন্টাল শক্তিশালী এবং বৃদ্ধির সম্ভাবনা প্রবল। পড়াশোনা করে সেই সব কোম্পানির শেয়ার বেছে নিতে পারলে সেখানে আপনার বোনাসের টাকা লগ্নি করতে পারেন। বাজার সম্বন্ধে ভালো ধারণা আছে এমন লগ্নিকারীদের জন্য শেয়ার বাজার উপযুক্ত।

বাজার সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা না থাকেলে মিউচুয়াল ফান্ড বেছে নিতে পারেন। মিউচুয়াল ফান্ডে আপনার টাকা ম্যানেজ করে ফান্ড ম্যানেজাররা। ইক্যুইটি মিউচুয়াল ফান্ড দীর্ঘ মেয়াদে 10 থেকে 12% রিটার্ন দিতে পারে। আর ডেট মিউচুয়াল ফান্ড 6 থেকে 8% বার্ষিক রিটার্ন প্রদান করতে পারে। মনে রাখবেন, বাজারে রিটার্ন ওঠানামা করে। তা স্থির নয়।

বোনাসের টাকা বিনিয়োগ করার পরে আপনার হাত গুটিয়ে বসে থাকা উচিত নয়। বরং আপনার উচিত বিনিয়োগের উপর সবসময় নজর রাখা। আপনার আর্থিক অবস্থা অনুযায়ী সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে একজন আর্থিক উপদেষ্টার পরামর্শ নিন। financial priorities পূরণ করার পরে, বোনাসের টাকার কিছুটা বিনোদন বা নতুন গ্যাজেট কেনার জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

Published: March 26, 2024, 13:49 IST

পার্সোনাল ফাইনান্স বিষয়ের সর্বশেষ আপডেটের জন্য ডাউনলোড করুন Money9 App